মিশরের ১ পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা হবে

মিশরের টাকার মান কত? মিশরের ১ পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা হবে। অনেকে গুগলে গিয়ে সার্চ করেন মিশরের ১০০ পাউন্ড কত টাকা। তাই আজ আমি আপনাদের মিশরের মুদ্রা বাংলাদেশের টাকা পরিবর্তন করলে কত টাকা হবে ও মিশরে টাকার রেট কত সেই তথ্যটা এই আর্টিকেলে বিস্তারিত জানাবো। 

মিশরের ১ পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা হবে


Hello বন্ধুরা
, আপনারা কেমন আছেন। আশা করি আপনারা আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। যারা মিশরের প্রবাসি আছেন তাদের জন্য আজকের আর্টিকেলটা শেয়ার করা হয়েছে। কারন তারা যখন মিশর থেকে বাংলাদেশে টাকা পাঠান, তাদের অবশ্যই মিশরের টাকার সঠিক মান কত তা জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি, আপনি যদি এই পোষ্টি পুরো পড়েন তাহলে আপনি একটু হলেও উপকার পাবেন।   

মিশরের ১ পাউন্ড  বাংলাদেশের কত টাকা হবে ২০২৩

মিশরের ১ পাউন্ড সমান ৩.৫৬ টাকা । আপনি যখন গুগলে গিয়ে মিশরের টাকা সম্পর্কে জানতে চাইবেন যে ১ পাউন্ড সমান কত টাকা। গুগলে আপনি সবার উপরে পেয়ে যাবেন যে মিশরে পাউন্ড ও বাংলাদেশের টাকার রূপান্তর। 

কিন্তু, আজ যে দেখছেন মিশরের ১ পাউন্ড যেত টাকা। আগামীতে তা নাও দেখতে পারেন। কারন পাউন্ড বা টাকার মান কখনো বাড়ে আবার কখনে কমে। তাই আপনি সবসময় গুগলে সার্চ দিয়ে আপডেট তথ্য পেয়ে যাবেন।

 আরো পড়ুন:

•  ই-সিম কি? কীভাবে eSIM ইন্সটল করবো এবং এর সুবিধা ও অসুবিধা √

• Facebook Profile Monetizetion থেকে কীভাবে টাকা আয় করবেন √ 

মিশরের ১০০ টাকা বাংলাদেশের কত টাকা ২০২৩

মিশরের ১০০ পাউন্ড সমান ৩৫৬ টাকা। আপনারা অনেকে যখন গুগলে গিয়ে মিশরে ১০০ পাউন্ড কত টাকা তা জানতে সার্চ করেন। তখন গুগলের সবার উপরে আপনি পেয়ে যাবেন যে মিশরে পাউন্ড ও বাংলাদেশের টাকার রূপান্তর।   

কিন্তু আপনি আজ থেকে কিছু মাস পর যদি মিশরে ১০০ পাউন্ড কত টাকা তা গুগলে সার্চ করেন তাহলে আপনি দেখবেন ভিন্ন টাকার সংখ্যা। এটার মূল কারন হলে ডলারের দাম যখন কমবে বা বাড়বে তখন সকল কারেন্সি এর দাম উপরে নিচে হবে। সেক্ষেএ পাউন্ড ও টাকার মান ও উঠা নামা করবে। তাই আপনি পাউন্ড বা টাকার আপডেটেট তথ্য পেতে আপনাকে গুগলের সাহায্য নিতে হবে।     

মিশরে টাকার মান কত? 

গুগলের সর্বশেষ আপডেট অনুযায়ী আপনি যদি মিশরের টাকার মান হবে সেটা জানতে চান তাহলে নিচের থেকে জেনে নিন। 

মিশরের ১ পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা


উপরে যে তথ্যটি দেওয়া হয়েছে। তা গুগলের সর্বশেষ আপডেট অনুযায়ী লেখা হয়েছে। মূলত মিশরের পাউন্ডকে টাকায় রূপান্তর করে উপরে দেখানো হয়েছে। এখানে মিশরের মুদ্রা পাউন্ড  এর তথ্য দেওয়া হয়েছে। 

মিশরের মুদ্রার ইতিহাস  

মিশরে দেশে ব্যবহার করার জন্য তাদের নিজস্ব মুদ্রা রয়েছে। তাদের মুদ্রার নাম হলো মিশরীয় পাউন্ড। এই মুদ্রাটি পৃথিবীর যে কোন মুদ্রা থেকে বেশি শক্তিশালী না হলেও বাংলাদেশের টাকার থেকে অনেক গুন শক্তিশালী। 

মিশরের ব্যাংক এর নাম হলো সেন্ট্রাল ব্যাংক অব ইজিপ্ট। এই ব্যাংক এর মাধ্যমে আপনি যে কোন দেশ থেকে মিশরে অর্থ পাঠাতে পারবেন। মিশরে ব্যাংক কোড হলো  EGP. এই কোড ব্যবহার করে যে কেউ মিশরের যে কাোন ব্যাংক এ টাকা পাঠাতে পারবেন। 

মিশরে অভ্যন্তরে ব্যবহার কারার জন্য জনপ্রিয় যে ব্যাংক নোট বা পাউন্ড রয়েছে সেগুলো হলোঃ LE ১, LE ৫, LE ১০, LE ২০, LE ১০০,LE ২০০, ২৫ PT, ৫০ PT, ১০০ PT ইত্যাদি।  

মিশরে দেশের ভিতরে যে কয়েনগুলো ব্যবহার করা হয় সেগুলো হলোঃ ২৫ PT, ৫০ PT,  LE ১. এই কয়েনগুলো ব্যবহার করে আপনি মিশরে যেকোন কিছু ক্রয় করতে পারবেন।  

একটা  মজার বিষয় হলো মিশরিয় মুদ্রা হলো সবচেয়ে পুরানো ও অন্যতম প্রাচীন মুদ্রা। প্রায় ১৯০ বছর ধরে ব্যবহার করে আসছে মিশরীয়রা।     

মিশর সম্পর্কে কিছু প্রশ্নের উওরঃ

১. মিশরের মুদ্রার নাম কি? 

উঃ মিশরের  মুদ্রার নাম হচ্ছে পাউন্ড। তাদের ব্যাংক এর মুদ্রার কোড হলো EGP. আশা করি মনে থাকবে। 

২. মিশরের সরকারি ব্যাংক এর নাম কি? 

উঃ মিশরের সরকারি ব্যাংক এর নাম হলো সেন্ট্রাল ব্যাংক অব ইজিপ্ট। এই ব্যাংক এর মাধ্যমে যে কোউ মিশরে পাউন্ড বা টাকা পাঠাতে পারবে।     

৩. মিশরের এর রাজধানীর নাম কি? 

উঃ মিশরের এর রাজধানীর নাম হচ্ছে কায়রো । আশা করি আপনার মিশরের  এর রাজধানীর নাম কায়রো কথাটি মনে থাকবে ।

৪. মিশরের আইনসভার নাম কি?

উঃ মিশরের  আইনসভার নাম হচ্ছে দারুল আওয়াম। আশা করি নামটা মনে থাকবে । 

৫. মিশরের  প্রধানমন্ত্রীর নাম কি?

উঃ মিশরের  প্রধানমন্ত্রীর নাম মোস্তফা মাদবৌলী । আশা করি মোস্তফা মাদবৌলী যে মিশরের  প্রধানমন্ত্রী এ কথাটি মনে থাকবে ।

আমার শেষ কথা

আশা করি আপনারা মিশরের ১ পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা হবে, এবং মিশরে পাউন্ড বাংলাদেশের কত টাকা তা আপনাদের বিস্তারিত  বুঝনোর চেষ্টা করেছি।

অর্থের মান সবসময় এক থাকে না তাই আপনারা সবসময় গুগলে সার্চ করে আপডেটেট তথ্য জেনে নিবেন। আজ এই পর্যন্ত। সবাই ভালো থাকবেন। 

আল্লাহ হাফেজ 💝 

Shahadat Hossain

সাহাদাত হোসেন একজন প্রযুক্তি ব্লগার ও ওয়েব ডিজাইনার। তিনি দীর্ঘদিন ধরে লেখালেখি ও ফ্রিলান্সার হিসাবে যুক্ত আছেন। সেই ভালো লাগা থেকে তিনি "টুরু লাইন বিডি" ব্লগ সাইটি প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি ব্লগিং সম্পর্কে খুব উৎসাহী তাই আপনাদের জন্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান সম্পর্কে সবসময় লিখে যাবে।

Post a Comment

Previous Post Next Post