বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম জানুন খুব সহজে

বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম জানুন খুব সহজে

Hello বন্ধুরা, আশা করি আপনারা সবাই আল্লাহর অশেষ রহমতে ভালো আছেন। কিছু দিন ধরে আমার অনেক প্রবাসে অবস্থানরত বাংলাদেশি ভাইয়েরা আমাকে ফেসবুকে নক দিয়ে জানতে চেয়েছেন যে কীভাবে বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলা যায়। বিকাশের নতুন একটা উদ্যোগের কারনে প্রবাসীদের খুশির শেষ নেই। বিকাশ প্রবাসীদের কথা চিন্তা করে বাংলাদেশ সরকারের সাহায্যে বিকাশকে সকল দেশে ব্যবহার করার অনুমতি দিয়েছে ৷

যাতে প্রবাসী তাদের কষ্টে অর্জিত অর্থ খুব সহজে তাদের প্রিয়জনদের কাছে পাঠাতে পারে। যার ফলে আমার কিছু ভাইয়েরা প্রবাসে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারতেছে না। তাই আজ আমি তাদের কথা চিন্তা করে বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম,বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার জন্য যা যা লাগবেযেভাবে বিদেশ থেকে  বিকাশের মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করবেন এবং কিভাবে বিদেশে বিকাশ একাউন্টে টাকা লোড করবেন সবকিছু আজ এই পোষ্টে বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন। তো সম্পূর্ণ পোষ্টি পড়ুন এবং খুব সহজে বিদেশে বসে বিকাশ একাউন্ট খুলুন।     


বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার জন্য যা যা লাগবে


বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খুলতে আপনার তিনটি জিনিস এর প্রয়োজন হবে তা নিচে পয়েন্ট আকারে দেখানো হলোঃ


• আপনি যে দেশে থাকেন ঔ দেশের একটি সচল মোবাইল নাম্বার লাগবে। 


• আপনার পাসপোর্ট ও বিদেশে আগমনের স্ট্যাম্পের ছবি। 


এনআইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পএের ছবি।       



আপনার এনআইডি কার্ডটি যদি ফিজিক্যাল কার্ড না থাকে তাহলে অনলাইন কপি হলে হবে। বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খুলার জন্য এই জিনিসগুলো আপনার সাথে অবশ্যই থাকা লাগবে।   


আপনার জন্যঃ বিকাশ একাউন্ট কার নামে আছে তা জানুন খুব সহজে

বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম


আমি ইতিমধ্যে আপনাদের বলে দিয়েছি যে বিদেশ থেকে  বিকাশ একাউন্ট খুলতে যা যা লাগবে। আমি আশা করি আপনি অবশ্যই সব জিনিসপত্র আপনার কাছে রয়েছে। তো চলুন খুব সহজে জেনে নেই বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম আমি নিচে Step/ধাপ আকারে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়মগুলো বলে দিচ্ছি। 


Step-1: আপনি প্রথমে গুগল প্লে স্টোর থেকে বিকাশ অ্যাপসটি ডাউনলোড করবেন।


Step-2: তারপর বিকাশ অ্যাপসি ওপেন করুন এবং লগইন / রেজিষ্ট্রেশন বাটন দেখতে পাবেন সেখানে ক্লিক করুন।


Step-3: এরপর একটা ইন্টারফেইস ফেস আসবে যেখানে আপনার মোবাইল নাম্বার দিতে বলবে। আপনি যে দেশে থাকেন সে দেশটা সিলেক্ট করেন এবং আপনার মোবাইল নাম্বারটি দেন। 


Step-4: তারপর আপনার বিদেশি মোবাইল নাম্বারে পাঠানো ভেরিফিকেশন কোড দিয়ে নিশ্চিত বাটনে ক্লিক করুন। 


Step-5: এরপর আপনি যে দেশ ত্যাগ করেছেন বা বিদেশে আগমনের স্ট্যাম্পের ছবি আপনার পাসপোর্ট থেকে নিয়ে আপলোড করে “Next” বাটনে ক্লিক করুন।    


Step-6: তারপর আপনার Nid Card এর সামনের অংশের ছবি তুলুন এবং পিছনের অংশের ছবি তুলে “Next” বাটনে ক্লিক করুন। আপনার জাতীয় পরিচয় পএের তথ্য যাচাই করুন ও আপনার ব্যাক্তিগত তথ্য দিয়ে “Next” বাটনে ক্লিক করুন।       


Step-7: আপনার বিকাশ একাউন্ট এর জন্য ৫ ডিজিট এর পিন সেট করুন। তারপর লগইন করুন আপনার বিকাশ একাউন্ট। 


Step-8: তারপর আপনার বিকাশ একাউন্ট যার নাম খুলছেন তার সম্পূর্ণ নামটি দিন এবং আপনার বিকাশের প্রোফাইল এর ছবি সেট করুন এবং আপনি দেখতে পারবেন বিকাশের মেইন ইন্টারফেইস। যার মাধ্যমে আপনি এখন বিদেশ থেকে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন।      


আপনার জন্যঃ

সেরা ৫টি সবচেয়ে কম দামে বাটন মোবাইল এর দাম ২০২৩

মোবাইল ট্রেন টিকেট বুকিং করুন খুব সহজে

Facebook Profile Monetizetion থেকে কীভাবে টাকা আয় করবেন 

নগদ একাউন্ট থেকে যেকোন ব্যাংকে টাকা ট্রান্সফার করুন খুব সহজে


যেভাবে বিদেশ থেকে  বিকাশের মোবাইল নাম্বর পরিবর্তন করবেন


যাদের আগে থেকে বিকাশ একাউন্ট আছে তারা যদি দেশের বাইরে গিয়ে বিকাশ একাউন্ট ব্যবহার করতে চায় তাহলে তাদের বিকাশে নতুন করে একাউন্ট খুলতে হবে না। তাদের পুরানো বিকাশ একাউন্ট এই ব্যবহার করতে পারবে শুধু তারা যে দেশে আছে সে দেশের মোবাইল নাম্বারটি পরিবর্তন করে নিলেই আপনি বিকাশ অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবেন। তো বলে দেই যে কিভাবে বিদেশ থেকে বিকাশের মোবাইল নাম্বারটি চেইন্জ করবেন সবকিছু ধাপ আকারে নিচে দেখানো হলোঃ


Step-1: প্রথমে আপনার বিকাশ অ্যাপসটি প্লে স্টোর থেকে ইনস্টল করুন অথবা আপডেট করে নেন। 


Step-2: বিকাশ অ্যাপটি ওপেন করেনএবং “বিকাশ নাম্বার পরিবর্তন” এই বাটনে ট্যাপ করুন। তারপর একটা নোটিফিকেশন আসবে সেখানে চেক করে প্রস্ডি বাটনে ক্লিক করুন। 


Step-3: তারপর আপনার বর্তমান বাংলাদেশি বিকাশ নাম্বারটি দিন এবং পরবর্তী বাটনে ক্লিক করবেন তারপর আপনার নতুন বিদেশি মোবাইল নাম্বারটি দেন এবং Next বাটনে ট্যাপ করেন তারপর আপনার নতুন বিদেশি মোবাইল নাম্বারে ভেরিফিকেশন কোড পাঠানো হবে তা দিন। 


Step-4: এরপর আপনি যে দেশ ত্যাগ করেছেন বা বিদেশে আগমনের স্ট্যাম্পের ছবি আপনার পাসপোর্ট থেকে নিয়ে আপলোড করে “Next” বাটনে ক্লিক করুন। 


Step-5: তারপর আপনার চেহারার ছবি তুলুন এবং কিছুক্ষনের মধ্যে আপনার বিদেশি মোবাইল নাম্বারে বিকাশ থেকে অস্থায়ী পিনটি এসএমএস- এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। তারপর অস্থায়ী পিনটি দিন।                                    


Step-6: তারপর আপনার বিকাশ একাউন্ট এর জন্য ৫ ডিজিট এর পিন সেট করুন। তারপর লগইন করুন আপনার বিকাশ একাউন্ট। 


Step-7: তারপর আপনার বিকাশ একাউন্ট যার নাম খুলছেন তার সম্পূর্ণ নামটি দিন এবং আপনার বিকাশের প্রোফাইল এর ছবি সেট করুন এবং আপনি দেখতে পারবেন বিকাশের মেইন ইন্টারফেইস। যার মাধ্যমে আপনি এখন বিদেশ থেকে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন ও যে কোন দেশে বিকাশ এর মাধ্যমে টাকা পাঠাতে ও পারনে। 


So, আশা করি ইতিমধ্যে আপনি উপরের নিয়মগুলো ফলো করে খুব সহজে আপনার পুরাতন বিকাশ একাউন্ট এর মোবাইল নাম্বর পরিবর্তন করে বিদেশি নতুন মোবাইল নাম্বার সফলভাবে আপডেট করতে পেরেছেন।


গুগল নিউজে আমাদের সাইটি ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন


যে দেশগুলোতে আপনি বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করতে পারবেন


বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের সাহায্য বিকাশ ৪২টি দেশে তাদের একাউন্ট খোলার সুবিধা চালু করেছে। এই পোষ্টি যখন লেখা হচ্ছে তখন শুধু ৪২টি দেশে চালু করা হয়েছে। ভবিষ্যতে আরো অন্যান্য দেশ থেকেও বিকাশ চালানো সম্ভব হবো। তো চলুন বর্তমান যে দেশগুলোতে বিকাশ একাউন্ট খোলার সেবা চালু আছে সে দেশগুলোর নাম নিচে পয়েন্ট আকারে দেখানো হলোঃ   


কানাডা

ইতালি

কাতার

ওমান

চীন

ভারত

জাপান

কুয়েত

শ্রীলঙ্কা

তুরস্ক

মিশর

বেলিজ

ব্রাজিল

ব্রুনাই

জার্মানি

ফ্রান্স

স্পেন

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাজ্য

সৌদি আরব

অস্ট্রিয়া

সংযুক্ত আরব আমিরাত, 

সিঙ্গাপুর

মালয়েশিয়া 

দক্ষিণ কোরিয়া

বাহরাইন

দক্ষিণ আফ্রিকা

অস্ট্রেলিয়া 

নিউজিল্যান্ড

ইন্দোনেশিয়া

থাইল্যান্ড

মেক্সিকো

আর্জেন্টিনা

আফগানিস্তান

আলবেনিয়া

আলজেরিয়া

বতসোয়ানা

বাহামা দ্বীপপুঞ্জ

বেলজিয়াম

বুলগেরিয়া

কম্বোডিয়া

ক্যামেরুন


বিদেশ থেকে বিকাশ অ্যাপে যেসব সুবিধা পাবেন 


বাংলাদেশের মতো বিদেশি বিকাশ অ্যাপে সকল সুবিধা পাওয়া যাবে না। বাংলাদেশ বিকাশ অ্যাপে অনেক ধরনের সুবিধা রয়েছে। কিন্তু আসা করা যায় কিছু দিনের মধ্যে বিদেশি বিকাশ অ্যাপেও আরো নতুন নতুন ফিচার দেখতে পাবেন। এখন বর্তমানে শুধু তিনটি সুবিধা পাবেন তা নিচে দেওয়া হয়েছে।  


• সেন্ড মানি ( যেকোন বিকাশ একাউন্ট ) 

• রেমিট্যান্স ( সরকারি বোনাস হাজারে ২৫ টাকা )

• মোবাইল রিচার্জ ( যেকোন দেশি অথবা বিদেশি নাম্বারে করতে পারবেন )      


কিভাবে বিদেশে বিকাশ একাউন্টে টাকা লোড করবেন


ইতি মধ্যে আপনারা খুব সহজে বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম জেনে সফলভাবে একটি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পেরেছন। এখন আপনার মাথায় একটা প্রশ্ন আসতে পারে যে আমরা কিভাবে বিদেশি বিকাশ একাউন্টে টাকা লোড করবো এবং লোড করতে কি আমাদের কোন ফি দিতে হবে। ওকে এখন বলি যে আপনি কোথায় থেকে আপনার বিকাশে টাকা লোড করবেন। 


Step-1: আপনার নিকটবর্তী মানি ট্রান্সফার বা বিকাশের এজেন্ট এর কাছে যান। 


Step-2: আপনার একাউন্ট এর প্রয়োজনীয় তথ্য দিন যেমন আপনার বিকাশ একাউন্ট নাম্বার। 


Step-3: তারপর যত টাকা পাঠাবেন তা পরিমান এজেন্টকে বলেন এবং তাকে আপনি যে দেশে থাকেন সে দেশের অর্থ দেন। ব্যাস কিছুক্ষন অপেক্ষা করলে আপনার বিকাশ একাউন্টে টাকা লোড হয়ে যাবে। 



আপনি যদি দেশে রেমিট্যান্স পাঠান বিকাশের মাধ্যমে তাহলে সরকারি বোনাস পাবেন হাজারে ২৫ টাকা করে। যার ফলে আপনার টাকা লোড করতে কোন খরচ হবে না বরং আপনি আপনার প্রিয়জনকে টাকা পাঠালে তিনি বিকাশ থেকে টাকা উওোলন করতে তাকে কোন রকমের খরচ দিতে হবে না। আবার একটা মজার বিষয় হলো আপনি যে কোন সময় যে কোন জায়গায় টাকা পাঠাতে পারবেন দিনরাত ২৪ ঘন্টা।               


আমার শেষ কথা 


আশা করি আপনারা এই পোস্টের মাধ্যমে বিদেশ থেকে বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম জানুন খুব সহজে জেনে গিয়েছেন। আমি এই আর্টিকেলে বিদেশ থেকে কিভাবে বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার ও বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা লোড করা সম্পর্কে সকল কিছু বিস্তারিতভাবে জানানো চেষ্টা করেছি। আপনি যদি এই পোষ্টাির কোন পয়েন্ট না বুঝতে পারেন তাহলে আমাকে নিচের কমেন্ট বক্স এই কমেন্ট করে অথবা আমাদের ফেসবুক পেইজে নক করে আপনার সমস্যাটি জানাবেন।                 


So, আজ এই পর্যন্ত দেখা হবো নতুন কোন ইন্টারেস্টিং টপিক্স নিয়ে সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ্য থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ 

Q&A


বাংলাদেশি সিম ছাড়া কি বিদেশে বিকাশ একাউন্ট খোলা যাবে?


হ্যাঁ, অবশ্যই! আপনি যেদেশে থাকেন সেই দেশের সিম দিয়ে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। যদি অলরেডি পুরানো বিকাশ একাউন্ট থাকে তাহলে আপনার বিকাশ নাম্বারটি বিদেশি নাম্বার দিয়ে পরিবর্তন করে নিতে পারবেন।       


বিদেশি বিকাশ একাউন্ট থেকে কি যেকোন বিকাশে সেন্ড মানি করা যাবে?


জি, আপনি বিদেশি বিকাশ একাউন্ট থেকে যেকোনো বাংলাদেশি বিকাশ একাউন্টে সেন্ড মানি করতে পারবেন। কিন্তু শুধু পার্সোনাল বিকাশ একাউন্টে টাকা পাঠাতে পারবেন ফ্রিতে। 


বিদেশ থেকে একদিনে কত টাকা পাঠানো যায়?


আপনি যদি বিদেশ থেকে রেমিট্যান্স পাঠান এর ক্ষেএে একজন ব্যাক্তি বা এক বিকাশ একাউন্ট থেকে বাংলাদেশ প্রতিদিন ১,২১,৯৫১ টাকামাসে সর্বোচ্চ ৪,৩৯,০২৪ টাকা পাঠাতে পারবেন। যা ডলারে রূপান্তর করলে আসে 3,991.1672 ডলার প্রায়। 


বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা পাঠানোর খরচ কত হবে?

আপনি ফ্রিতে টাকা পাঠাতে পারবেন কোন খরচ দিতে হবে না। কিন্তু যে টাকা বিকাশ থেকে উওোলন করবে শুধু তাকে খরচ দিতে হবে হাজারে ২০ টাকা করে। আর আপনি যে দেশ থেকে টাকা পাঠাবেন সে দেশের মানি একচেন্জস হাউজগুলোতে টাকা অথবা অর্থের মানের আপ ডাউন হতে পারে। তাই আপনার বেশি একটা খরচ হবে না বরং সরকারি বোনাস পাবেন টাকা বাংলাদেশ বিকাশের মাধ্যমে পাঠালে।    


Shahadat Hossain

সাহাদাত হোসেন একজন প্রযুক্তি ব্লগার ও ওয়েব ডিজাইনার। তিনি দীর্ঘদিন ধরে লেখালেখি ও ফ্রিলান্সার হিসাবে যুক্ত আছেন। সেই ভালো লাগা থেকে তিনি "টুরু লাইন বিডি" ব্লগ সাইটি প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি ব্লগিং সম্পর্কে খুব উৎসাহী তাই আপনাদের জন্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান সম্পর্কে সবসময় লিখে যাবে।

Post a Comment

Previous Post Next Post